Reading Time: 3 minutes

জাম খা্ন। এগুলি আপনাকে ডায়াবেটিসকে আরও উপযুক্তভাবে নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করবে।”

“ভুট্টা খাওয়া থেকে দূরে থাকুন। এটা ডায়াবেটিকদের জন্য খারাপ।”

“ভাত খাবেন না। এটা আপনার শর্করা মাত্রা বৃদ্ধি করবে।”

ডায়াবেটিসের সাথে বসবাসের মানে হল আপনাকে কোন খাবার খেতে হবে এবং কী কী এড়িয়ে চলতে হবে তার উপর অবিরাম উপদেশ শোনার পালা চলে। আপনাকে যে খাবারগুলি এড়িয়ে চলতে হবে তার তালিকায় একদম ওপরে রয়েছে রসাল ফল: আম, কাস্টার্ড আপেল, চিক্কু বা সবেদা, কলা এবং আঙুর।

সাধারণ যুক্তিটি হল যে এই ফলগুলিতে প্রচুর পরিমাণে শর্করারয়েছে যা ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য নানা সমস্যা সৃষ্টি করে। এবং, যারা ফল ভালবাসে, এই সুস্বাদু ফল না খাওয়ার কথা বলার জন্য তাদের বলতে আপনাকে প্রতি আউন্স-এ অবশ্যই প্রচুর সাহস একত্রিত করে জোরদার করতে হবে। কিন্তু, এখন আর সে দিন নেই।

আমরা জানি যে আপনি গ্রীষ্মকালে আম খেতে এবং বর্ষাকালে কাস্টার্ড আপেলগুলি খেতে কতটা ভালবাসেন। আমাদের স্বাস্থ্য প্রশিক্ষক, মাননীয়া জয়শ্রী সালিয়ান দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করেন যে এই প্রাকৃতিক মিষ্টত্ব খাওয়ার জন্য আপনার ভালবাসার পথে মোটেই ডায়াবেটিস বাধা হয় না।

সুতরাং, আসুন সুপারিশ করা পরিবেশন পরিমাণ সহ এই সব ফল খেলে কী কী চিত্তাকর্ষক স্বাস্থ্যগত সুবিধাগুলি পাওয়া যায় তা দেখা যাক:

1. আম:

ফলের রাজা আম, যথাযথভাবেই এর রাজকীয় পুষ্টি-সম্পদে ভরপুর একটি ফল। এতে বিটা-ক্যারোটিন পদার্থের চমৎকার উপস্থিতি আপনার চোখের স্বাস্থ্যের উন্নতিতে এবং আপনার ত্বককে ঘামময় গ্রীষ্মকালে আর্দ্র রাখার ক্ষেত্রে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এছাড়া, এতে ভিটামিন C ভরপুর থাকে, যেটি আপনার শরীরকে কোলাজেন তৈরিতে সাহায্য করে। এই কোলাজেন আপনার ত্বকের অঙ্গ-বিন্যাসের দৃঢ়তা বজায় রাখতে সাহায্য করে এবং ত্বককে উজ্জ্বল করে তোলে। আর কত কী বলি, এতে আরো থাকে, গ্যালোট্যানিন্স, ক্যুইরসেটিন আর ম্যাঙ্গোফারিন। এই সব ফাইটোনিউট্রিয়ান্ট-গুলি আপনার স্মৃতিশক্তি এবং মনোযোগ বাড়াতে আর এর পাশাপাশি রক্তচাপ এবং কোলেস্টেরল কমাতে সাহায্য করে।

প্রস্তাবিত অংশ-পরিমাণ এবং এটি খাওয়ার সেরা সময়:

আপনি সপ্তাহে দুবার সকালের খাবারে মাঝারি আকারের অর্ধেকটা আম খেতেই পারেন। তিনটি অর্ধেক করা আখরোটের সঙ্গে এটি খান। বাদাম আপনাকে অপরিহার্য চর্বি ও এর সঙ্গে আপনার শরীরে পুষ্টিগুণ সরবরাহের পাশাপাশি শর্করার হঠাৎ অস্বাভাবিক হেরফেরে বাধা দেয়।

2. কলা:

ক্রীড়াবিদদের প্রিয় ফল, কলা একটি দুর্দান্তভাবে সুবিধাজনক এবং পুষ্টিকর খাবার। এগুলি পটাসিয়ামের সমৃদ্ধ উৎস, যা আপনাকে আপনার রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করতে এবং আপনার কিডনিগুলির সঠিক কার্যকারিতা বজায় রাখতে সহায়তা করে। কলাগুলিতে ভিটামিন B6-এ ভরপুর থাকে, যা ধমনীর রুদ্ধ হওয়া প্রতিরোধ করে, যার ফলে হৃদরোগের ঝুঁকি কমিয়ে দেয়। এছাড়াও কলাগুলিতে ফাইবার এবং প্রতিরোধী শ্বেতসার থাকে যাতে অন্ত্রের ব্যাকটেরিয়াগুলি উপকৃত হয় এবং আপনি কোলন ক্যান্সার থেকে রক্ষা পেতে পারেন

প্রস্তাবিত অংশ-পরিমাণ এবং এটি খাওয়ার সেরা সময়:

যারা জিম-এ যায় এবং অ্যাথলেট-দের মতো, সপ্তাহে একবার অনুশীলন করার আগে আপনি একটি ছোটো কলা খেতে পারেন। ব্যায়ামের সময়ে কলা থেকে পাওয়া শর্করা আপনার শরীর জ্বালানি হিসাবে কাজ করবে।

3. কাস্টার্ড আপেল:

শাঁসালো গ্রীষ্মমন্ডলীয় ফল, কাস্টার্ড আপেল, খুব পুষ্টিকর এবং খেতেও রসাল আর সুস্বাদু। এগুলিতে এসিটোজেনিন্স এবং অ্যালকোলয়েডসে ভরপুর থাকে, এই জৈবপদার্থ ফুসফুস, স্তন, প্রোস্টেট এবং অগ্ন্যাশয়ের ক্যান্সারের বিরুদ্ধে আপনাকে সুরক্ষা দিতে পারে। এছাড়াও, কাস্টার্ড আপেলগুলি B-কমপ্লেক্স ভিটামিনগুলির একটি গুদা্মের মতো যা আপনার বিপাকীয় ক্রিয়াকলাপগুলিকে নিয়ন্ত্রণ করে এবং মানসিক বিষণ্নতা এবং চাপ প্রতিরোধ করে। কাস্টার্ড আপেলে প্রচুর তামাও থাকে, যা লাল রক্ত-​​কোষ উৎপাদনে সাহায্য করে এবং হাড়ের গঠন দৃঢ় করতে এবং আরও শক্তিশালী করতে সাহায্য করে।

প্রস্তাবিত অংশ-পরিমাণ এবং এটি খাওয়ার সেরা সময়:

আপনি মাঝামাঝি সকালের আহার হিসাবে কাস্টার্ড আপেলটি সপ্তাহে দুবার খেতেই পারেন। সঙ্গে খাবেন এক মুঠো রোস্ট করা চানা। উচ্চ-প্রোটিন যুক্ত চানা আপনার গ্লুকোজের মাত্রা বৃদ্ধি প্রতিরোধে সহায়তা করবে। 

4. চিক্কু বা সবেদা:

শাঁসালো বাদামী রঙের ফল এবং দানাদার স্বাদ যুক্ত সবেদা, প্রাকৃতিক মিষ্টিতে ভরপুর একটি ফল। এতে থাকা উচ্চ-ফাইবার আপনার সমস্ত পাচক সমস্যাগুলি, এর মধ্যে বিশেষ করে কোষ্ঠকাঠিন্য এবং ইরিটেবল বাওয়েল সিন্ড্রোম প্রতিরোধে সহায়তা করে। এতে থাকা ট্যানিন্সের সাথে আরও থাকে শক্তিশালী ভাইরাস বিরোধী, ব্যাকটেরিয়া বিরোধী এবং প্রদাহ বিরোধী জনিত বৈশিষ্ট্য এবং এইগুলি থাকার জন্য এটি, বিশেষ করে ঋতু পরিবর্তনের কারণে ঠান্ডা লাগা এবং কাশি প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে। সবেদাতে উচ্চ গুণমানের ভিটামিন এবং খনিজ উপাদান আমাদের শরীরের হাড়ের খনিজ ঘনত্ব এবং শক্তি বৃদ্ধি করে থাকে।

প্রস্তাবিত অংশ-পরিমাণ এবং এটি খাওয়ার সেরা সময়:

সপ্তাহে দুবার প্রাক-ব্যায়ামের সময়ের খাবার হিসাবে আপনি মাঝারি আকারের সবেদা খেতে পারেন। তিনটি বাদাম এর সঙ্গে অবশ্যই খাবেন। এই শর্করা-অপরিহার্য চর্বি সমন্বয় শক্তির কারণে আপনি ব্যায়াম করতে বেশি শক্তি পান এবং চর্বি ঝরাতেও প্রভূত সাহায্য করতে পারে।

5. আঙুর:

সুস্বাদু আঙুর ফল, খেলে দুর্দান্ত তরতাজা বোধ হয়। এগুলি ফ্ল্যাভোনিয়েড-এর একটি সমৃদ্ধ উৎস, যেমন, কোয়ারসেটিন এবং রেসভেরাট্রোল, যা প্লেক জমা এবং LDL-এর নিম্ন মাত্রা-বৃদ্ধির প্রতিরোধ করতে পারে, যার ফলে হৃদযন্ত্র সংক্রান্ত রোগগুলির ঝুঁকি হ্রাস পায়। এছাড়া, আঙুরে প্রচুর পরিমাণে পলিফেনল থাকে, যা আমাদের শরীরের সব সন্ধি অংশের, বিশেষ করে হাঁটুর, নমনীয়তা এবং গতিশীলতা উন্নত করতে পারে। আঙুরে প্রচুর  জলও থাকে যা শরীর থেকে বিষাক্ত পদার্থ নিষ্কাশন করতে সাহায্য করে।

প্রস্তাবিত অংশ-পরিমাণ এবং এটি খাওয়ার সেরা সময়:

আপনি সপ্তাহে দুবার মধ্য সকালের আহার হিসাবে দশ থেকে বারোটি আঙুর খেতে পারেন। এক চামচ ফ্ল্যাক্সিড বা কুমড়া বীজের সঙ্গে এটি খাবেন। ফাইবার সমৃদ্ধ বীজ এবং আঙুরে্র সংমিশ্রণ আপনার স্বাদ-কোরকে জাদু-স্বাদ এনে দেয়

Loved this article? Don't forget to share it!

Disclaimer: The information provided in this article is for patient awareness only. This has been written by qualified experts and scientifically validated by them. Wellthy or it’s partners/subsidiaries shall not be responsible for the content provided by these experts. This article is not a replacement for a doctor’s advice. Please always check with your doctor before trying anything suggested on this article/website.