Reading Time: 3 minutes

অশ্বিনী এস কানাড়ে, রেজিস্টার্ড ডায়েটিশান এবং প্রত্যয়িত বিশিষ্ট ডায়াবেটিস শিক্ষাবিদ তাঁর 17 বছরের অভিজ্ঞতা সহ এটির বিশেষজ্ঞপর্যালোচনা করেছেন

আমরা নিশ্চিত যে একজন ডায়াবেটিক রোগী হিসাবে, আপনার রক্তের শর্করার মাত্রা আয়ত্ত্বে রাখতে আপনার কী করা উচিত এবং কী করা উচিত নয় সেই সম্পর্কে বিনামূল্যে অনেক রকম জ্ঞান আপনি কোথাও না কোথাও থেকে পেয়েই থাকেন। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে, এইসব টুকরো পরামর্শের প্রভাব ভালো হওয়ার থেকে বেশি ক্ষতিই করে এবং আপনার পক্ষে বিরক্তিকর এমন সব গুজব রটায় যা আপনার একেবারে বিশ্বাস না করাই উচিত হবে।

কোনো কারণে আপনি এই ধরনের গুজবের শিকার হয়ে পড়লেও, মোটেই চিন্তা করবেন না! আজ চেন্নাইয়ের ডাঃ মোহন স ডায়াবেটিস স্পেশালিটিস সেন্টার-এর অধ্যক্ষ এবং মুখ্য ডায়াবেটোলজিস্ট, ডাঃ ভি মোহন, সকল গুজব এবং অতিকথা দূ্রে সরিয়ে দিয়েছেন এবং ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে আপনার কী করা উচিত এবং কী করা উচিত নয় এই সম্বন্ধীয় তাঁর বিশেষজ্ঞ মতামত সরাসরি এক রেকর্ড স্থাপন করতে চলেছে।

1 নং অতিকথন: ডায়াবেটিক রোগীদের একদম ফল খেতে হয় না

সত্য: সাধারণ নিয়ম হিসাবে, আপনার রক্তের শর্করার মাত্রা সঠিকভাবে নিয়ন্ত্রিত হলে তবেই ফল খান। এইভাবে, ফ্রুক্টোজ (ফলের মধ্যে পাওয়া এক ধরনের শর্করা) দ্বারা সৃষ্ট রক্ত-শর্করার মাত্রা বৃদ্ধি আপনাকে খুব বেশি প্রভাবিত করবে না।

এছাড়াও, আপনি কম গ্লাইসেমিক সূচক যুক্ত ফল বাছাই করে খাওয়া নিশ্চিত করুন। আপনি উচ্চ গ্লাইসেমিক সূচক যুক্ত ফলগুলি একান্তই খেতে চাইলে তবে দিনের বাকি সময় আপনি যেসব শর্করা সমৃদ্ধ খাবার খান, তা একেবারে কমিয়ে বা বন্ধ করে শর্করার পরিমাণে সামঞ্জস্য বজায় রাখুন।

অতিকথন 2 : টাইপ 2 ডায়াবেটিস ডায়াবেটিস রোগের অতি নিরীহ এক ধরন মাত্র। এটা নিয়ন্ত্রণ করার আমার  তেমন দরকার নেই

সত্য: টাইপ 2 ডায়াবেটিস রোগটিকে কোনোভাবেই এতটুকুও কম গুরুত্ব দেবেন না! টাইপ 1 ডায়াবেটিস-এর একজন রোগীর মতো আপনার লাগাতার ইনস্যুলিন ইনজেকশনগুলির প্রয়োজন না হলেও, এর অর্থ এই নয় যে টাইপ 2 মৃদু ধরনের বা কম গুরুত্বপূর্ণ রোগ বা এটি নিয়ন্ত্রণ ও চিকিৎসা করার কোনোই দরকার নেই।

অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিস আপনার শরীরের বিভিন্ন অঙ্গের কাজকর্ম প্রভাবিত করার ফলে নানা ধরনের স্বাস্থ্য জনিত জটিলতা হতে পারে। কিন্তু সুখবর হল যে স্বাভাবিক জীবনযাত্রার কিছুটা পরিবর্তন করে যেমন স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া, ব্যায়াম করা, সময় মতো ওষুধ সেবন করা এবং স্বাস্থ্যকর স্বাভাবিক ওজন বজায় রাখা এই জটিলতার ঝুঁকি কমাতে সহায়তা করে।

অতিকথন 3 : ডায়াবেটিস থাকলে কি আমি অবশেষে অন্ধ হয়ে যাব?

সত্য: সকল ডায়াবেটিক রোগীই ক্রমে রোগের শেষ অবস্থায় অন্ধ হয়ে যান তা সত্য নয়। ডায়াবেটিস হল অন্ধত্বের সাধারণ কারণগুলির মধ্যে একটি, তবে দীর্ঘমেয়াদী অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিস রোগের ক্ষেত্রে এটি সত্য। আপনি আপনার ডায়াবেটিসকে ন্যূনতম হেরফের সহ যথাযথভাবে নিয়ন্ত্রণ করলে আপনি সারা জীবনের জন্যই চোখের রোগজনিত নানা জটিলতাগুলি প্রতিরোধ করতে পারেন।

অতিকথন 4 : ডায়াবেটিস বংশগত, আমার এটা হবেই এই সম্পর্কে আর কিছুই করার নেই।

সত্য: আবার বলছি এটাও ঠিক কথা নয়। মাত্র 40% [1] ডায়াবেটিস রোগ উত্তরাধিকার-সূত্রে প্রাপ্ত হয়, তবে 60% ডায়াবেটিস রোগই হয় বেহিসাবি জীবনযাত্রার কারণে যেমন স্থূলতা, ব্যায়ামের অভাব, ক্ষতিকর খাবার খাওয়ার অভ্যাস এবং এমনকী মানসিক চাপের কারণেও। পিতামাতা উভয়ের ডায়াবেটিস হয়ে থাকলে, সম্ভবতঃ তাদের সব কয়জন সন্তানই ডায়াবেটিস রোগটিও পাবেন। কিন্তু যদি পিতামাতার মধ্যে একজনের ডায়াবেটিস থাকে তবে তাদের সন্তানের ক্ষেত্রে অন্তত 50% [1] ঝুঁকি কমে যায়। সুতরাং, সুখবর হল যে ডায়াবেটিসের জিন শরীরে থাকা সত্ত্বেও, যদি আপনি ব্যায়াম করে সক্রিয় জীবনযাপন এবং শরীরের আদর্শ ওজন বজায় রাখেন তবে ডায়াবেটিস প্রতিরোধ করা এখনও সম্ভব।

অতিকথন 5 : আ্মার ওজন বেশি, তাই আমার ডায়াবেটিস রোগ হবেই।

সত্য: পছন্দসই বেহিসাবি জীবনযাপনের সঙ্গে ওজনও বেশি হওয়ায় আপনার ক্ষেত্রে ডায়াবেটিস রোগ হওয়ার সম্ভাবনা বৃদ্ধি হয়। বংশগত কারণ থাকলে এই সম্ভাবনা আরও বৃদ্ধি হয়। সক্রিয় থাকা এবং স্বাস্থ্যকর খাবার খেয়ে স্বাভাবিক ও স্বাস্থ্যকর ওজন বজায় রাখলে তা ডায়াবেটিস রোগের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করতে পারে। এবং আপনার এরমধ্যেই ডায়াবেটিস হয়ে থাকলে, এখন থেকেই সুস্থ ও স্বাস্থ্যকর জীবনযাপন শুরু করলে এবং ওজন কমানো ও নিয়ন্ত্রণের ব্যবস্থা করলে তা এমনকী রোগটি বিপরীতমুখী করতেও সাহায্য করতে পারেন [2]

অতিকথন 6 : আমার ডাক্তার আমাকে ইনস্যুলিন অবশ্যই নেওয়ার কথা বললে, এর অর্থ হল আমার ডায়াবেটিস আরও খারাপ দিকে যাচ্ছে।

সত্য: এটি শুধুমাত্র আংশিকভাবে সত্য। টাইপ 2 ডায়াবেটিস যুক্ত মানুষের সাধারণত প্রাথমিক পর্যায়ে ইনস্যুলিন নেওয়ার প্রয়োজন হয় না। যাইহোক, সময়ের সাথে সাথে, আপনার অগ্ন্যাশয় কার্যকরীভাবে কাজ বন্ধ করে দেয় বা ওষুধগুলি আর কার্যকরী না হলে তবে ইনস্যুলিন সেবনই হল চিকিৎসার পরবর্তী পদ্ধতি। কিন্তু এতে এখনও এটা বোঝায় না যে এটি অত্যন্ত খারাপ অবস্থা কারণ নিয়মিত ইনস্যুলিন সেবনের পরেও মানুষ পূর্ণ ও স্বাস্থ্যকর জীবনযাপন করতে পারে।

রেফারেন্স:

  1. Rashmi B. Prasad, and Leif Groop. Genetics of Type 2 Diabetes—Pitfalls and Possibilities. Genes (Basel). 2015 Mar; 6(1): 87–123. Published online 2015 Mar 12. doi: 10.3390/genes6010087 https://www.ncbi.nlm.nih.gov/pmc/articles/PMC4377835/
  2. J P H Wilding. The importance of weight management in type 2 diabetes mellitus. Int J Clin Pract. 2014 Jun; 68(6): 682–691. Published online 2014 Feb 18. doi: 10.1111/ijcp.12384  https://www.ncbi.nlm.nih.gov/pmc/articles/PMC4238418/

 

Loved this article? Don't forget to share it!

Disclaimer: The information provided in this article is for patient awareness only. This has been written by qualified experts and scientifically validated by them. Wellthy or it’s partners/subsidiaries shall not be responsible for the content provided by these experts. This article is not a replacement for a doctor’s advice. Please always check with your doctor before trying anything suggested on this article/website.