Reading Time: 3 minutes

আপনার অজান্তেই আপনার ডিস্লেপাইডেমিয়া রোগ হতে পারে যা হঠাৎই একদিন আপনি জানতে পারেন। কিন্তু, এর মানে এই নয় যে সবদিকেই ধ্বংসযজ্ঞ শুরু হল এবং আপনাকে একরাশ বিষণ্ণতা গ্রাস করল। আপনার জীবনযাত্রায় খুব সাধারণ ও সরল পরিবর্তনগুলি আপনাকে আপনার বর্তমান অবস্থা নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করতে বেশ অনেকটা দীর্ঘ পথ এগিয়ে দেবে।

ডিস্লেপাইডেমিয়া রোগলক্ষণগুলি কী কী?

একজন ব্যক্তির রক্তে লিপিডের মাত্রা অস্বাভাবিক হয়ে থাকলে তার ডিস্লেপাইডেমিয়া রোগ হয়েছে বলা যায়।

আপনার শরীরে মুলতঃ তিন ধরনের লিপিড থাকে: উচ্চ-ঘনত্বের লাইপোপ্রোটিন (HDL) এবং স্বল্প-ঘনত্বের লাইপোপ্রোটিন (LDL) অর্থাৎ প্রধানতঃ এই দুই ধরনের কোলেস্টেরল, এবং ট্রাইগ্লিসেরাইড, যেগুলি হল রক্তে উপস্থিত থাকা আরেক ধরনের চর্বি জাতীয় পদার্থ। আপনার ডিস্লেপাইডেমিয়া রোগ হলে, সাধারণভাবে এর মানে হল আপনার হাইপারলিপিডেমিয়া, বা উচ্চ-মাত্রার LDL-এর (‘ক্ষতিকারক’ কোলেস্টেরল) উপস্থিতিগত রোগ হয়েছে যেটি হল সবচেয়ে প্রচলিত ধরন। রক্তে অতি স্বল্প মাত্রার HDL (‘উপকারী’ কোলেস্টেরল) থাকলে সেটি হল তুলনায় বিরল ধরনের ডিস্লেপাইডেমিয়া রোগের লক্ষণ।

দেহে LDL এবং ট্রাইগ্লিসারাইডের উচ্চ মাত্রার উপস্থিতি হৃদপিণ্ডের নানা ধরনের রোগের ঝুঁকি বাড়ায়।

কেন জীবনযাত্রার পরিবর্তন ডিস্লেপাইডেমিয়াএর চিকিৎসায় এই রকম গুরুত্বপূর্ণ হয়ে থাকে?

ডিস্লেপাইডেমিয়া রোগ জিনগত কারণগুলির জন্য হতে পারে এবং এটি কোনো একজন সন্তান তার পিতামাতার কাছ থেকে উত্তরাধিকারসূত্রে পেতে পারে, তবে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই ক্ষতিকারক জীবনযাত্রা বা দীর্ঘস্থায়ী কোনো রোগ বা এর চিকিৎসাগত অবস্থার কারণেই এই রোগের জন্ম হয়। এই জন্যই জীবনযাত্রার নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থাটির কথা এত গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠে। জিনগত কারণগুলি তো কোনোমতেই নিয়ন্ত্রণ করা যাবে না অতয়েব সুস্থ থাকতে, আপনি সক্রিয়ভাবে আপনার স্বাস্থ্যগত অবস্থার উন্নতিই বেছে নিতে পারেন।

আপনার ডিস্লেপাইডেমিয়া রোগের গুরুতর অবস্থায়, বা আপনার অন্যান্য চিকিৎসাগত অবস্থার সাথে এই রোগও থাকলে আপনার কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণের কারণে আপনার ওষুধ সেবনের দরকার হতে পারে। কিন্তু, তার মানে এই নয় যে আপনি অন্যান্য স্বাস্থ্যকর অভ্যাসগুলি আপনার জীবনযাত্রায় অন্তর্ভুক্ত করবেন না। জীবনযাত্রা্র বদল ডিস্লেপাইডেমিয়া্র চিকিৎসায় একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ।

আপনার জীবনযাত্রার কোন অংশটিকে আপনি অবশ্যই বদলাবেন?

সুষম খাদ্যতালিকা

দ্য আমেরিকান হার্ট অ্যাসোসিয়েশন আপনার কোলেস্টেরলের মাত্রা কমিয়ে হৃদপিণ্ড সুস্থ ও সবল রাখতে এক রকম সুষম খাদ্যতালিকা অনুসরণের পরামর্শ দেয় [1]। এর মানে হল আপনার জন্য কোলেস্টেরল যুক্ত খাবারের পরিমাণ কমানো যাতে সংশ্লেষিত চর্বি জাতীয় এবং ট্রান্স চর্বি জাতীয় উপাদান অত্যন্ত বেশি থাকে যেমন রেড মিট জাতীয় এবং তেলে ভাজা খাবার। এর বদলে আপনার সুষম খাদ্যতালিকায় বরং ফল, শাকসবজি এবং গোটা দানার শস্যের মতো বেশি উচ্চ-আঁশ যুক্ত খাবার, এবং অসম্পৃক্ত চর্বি জাতীয় খাবার যেমন বাদাম, ফল বা সবজির বীজ, লেবু, মাছ এবং জলপাইয়ের তেল প্রভৃতি খাবার অন্তর্ভুক্ত করা উচিত।

স্থূলতা

আপনার দেহের অতিরিক্ত ওজন, বিশেষ করে কোমর এবং নিতম্বের চারপাশে, আপনার শরীরের LDL কোলেস্টেরল অপসারণ করার ক্ষমতাকে প্রভাবিত করে, ফলে আপনার রক্তে এর মাত্রা বেড়ে যায় [2]। সুতরাং, ওজন কমাতে এবং স্বাস্থ্যকর শরীরে সঠিক ওজন বজায় রাখতে পারলে আপনার দেহে কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে সেটি সাহায্য করবে।

শারিরীক কাজকর্ম

শারীরিকভাবে কম কাজ-কর্ম করা বা চলাফেরা না করে বসে কাজ করার প্রবণতা এই দুটিই হল ডায়াবেটিস এবং হৃদপিণ্ডের যে কোনো রোগের দুটি বড়ো ঝুঁকির কারণ। ব্যায়াম ওজন কমাতে সহায়তা করে এবং আপনার পক্ষে স্বাস্থ্যকর ওজন বজায় রেখে হৃদপিণ্ডটিকে শক্তিশালী করে, সারা দেহে রক্ত সঞ্চালন বাড়ায় এবং আপনার কোলেস্টেরল এবং রক্তচাপের মাত্রা কমায়[2]। প্রতিদিন 30 মিনিটের মাঝারি মানের চরম পর্যায়ের ব্যায়ামের মতো দৈহিক কাজ-কর্ম, যেমন দ্রুত হাঁটা, জগিং, দৌড়ন, সাইকেল চালান, সাঁতার বা অ্যারোবিক্স, আপনার সামগ্রিক স্বাস্থ্যের ব্যাপক উন্নতি সাধন করবে।

ঘুমোন

আজকালকার চরম ব্যস্ত ও অস্থির জীবনযাত্রায়, অধিকাংশ মানুষ যথেষ্ট পরিমাণে ঘুমের সময় পান না। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল হার্ট, লাঙ অ্যান্ড ব্লাড ইনস্টিটিউট (NHLBI) সংস্থার পরামর্শ অনুসারে পর্যাপ্ত সময়ের জন্য ও স্বাস্থ্যকরভাবে ঘুমের অভাব আপনার রক্ত-চাপের উপর সরাসরি প্রভাব ফেলে এবং স্থূলতা, যে কোনো হৃদরোগ এবং পক্ষাঘাতের ঝুঁকি বাড়ায়। NHLBI প্রতি রাতে কমপক্ষে 7-8 ঘন্টা ঘুমানোর পরামর্শ দিয়ে থাকে[3]|

ধূমপান

সবচেয়ে বেশি এককভাবে ধূমপানই সম্ভবত জীবনযাত্রাগত এক বিষাক্ত আচরণ যা আপনার শরীরের সর্বোচ্চ ক্ষতির কারণ হয়ে থাকে। ডিস্লেপাইডেমিয়াতে ধূমপানের ভূমিকা সম্পর্কে বলা যায়, এটি আপনার LDL কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়ায়, আথেরোস্ক্লেরোসিস হওয়ার সম্ভাবনা এবং আপনার রক্ত-চাপ বাড়িয়ে দেয়[4]। আপনার হৃদপিণ্ডের কাজের ক্ষমতা এবং সামগ্রিক স্বাস্থ্য উন্নত করতে আপনি ধূমপান ছেড়ে দিয়ে আপনার স্বাস্থ্যের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ পরিবর্তনটি করে ফেলতে পারেন।

দীর্ঘমেয়াদী অভ্যাসের বদল এবং নতুন অভ্যাসগত প্রতিশ্রুতি পূরণ করতে, অঙ্গীকার, আত্মোৎসর্গ এবং শৃঙ্খলা বজায় রাখার প্রয়োজন। আপনি আপনার লক্ষ্যে অবিচল থেকে এটি নিশ্চিত করার সেরা উপায়গুলির মধ্যে একটি হল কোনো একটি অ্যাপ্লিকেশান ব্যবহার করে আপনার জীবনযাত্রাগত কাজ-কর্মগুলি নিয়মিত ট্র্যাক করা।

অ্যাপ্লিকেশনটি নিয়মিত খুলে দেখলে আপনার পুষ্টি, শারীরিক কাজ-কর্ম এবং অন্যান্য স্বাস্থ্য বিষয়গুলি সম্পর্কে এতে দেওয়া তথ্য আপনাকে আপনার অভ্যাস সম্পর্কে আরও সচেতন করে তুলবে। এটি আপনাকে আপনার স্বাস্থ্যের সঙ্গে জড়িয়ে থাকা আপনার সুষম খাদ্য-তালিকা, ব্যায়াম ইত্যাদির সম্পর্ককে বুঝতে সাহায্য করে।

 

তথ্য-সূত্রগুলি:

  1. American Heart Association. Prevention and Treatment of High Cholesterol (Hyperlipidemia). Available at: https://www.heart.org/en/health-topics/cholesterol/prevention-and-treatment-of-high-cholesterol-hyperlipidemia [Accessed 9 April 2019].
  2. The Center for Disease Control and Prevention. Preventing High Cholesterol. Available at: https://www.cdc.gov/cholesterol/prevention.htm [Accessed 9 April 2019].
  3. National Heart, Lung, and Blood Institute. Your Guide to Healthy Sleep. Available at: https://www.nhlbi.nih.gov/health-topics/all-publications-and-resources/your-guide-healthy-sleep [Accessed 9 April 2019].
  4. The Center for Disease Control and Prevention. Smoking and Cardiovascular Disease. Available at: https://www.cdc.gov/tobacco/data_statistics/sgr/50th-anniversary/pdfs/fs_smoking_CVD_508.pdf [Accessed 9 April 2019].

Loved this article? Don't forget to share it!

Disclaimer: The information provided in this article is for patient awareness only. This has been written by qualified experts and scientifically validated by them. Wellthy or it’s partners/subsidiaries shall not be responsible for the content provided by these experts. This article is not a replacement for a doctor’s advice. Please always check with your doctor before trying anything suggested on this article/website.