Reading Time: 3 minutes

অশ্বিনী এস কানাড়ে, রেজিস্টার্ড ডায়েটিশান এবং প্রত্যয়িত ও বিশিষ্ট ডায়াবেটিস শিক্ষাবিদ তাঁর 17 বছরের অভিজ্ঞতা সহ এটির বিশেষজ্ঞ-পর্যালোচনা করেছেন

ডায়াবেটিসে, হয় অগ্ন্যাশয় শরীরের কোষে গ্লুকোজ শোষণে সাহায্য করতে পর্যাপ্ত ইনস্যুলিন উৎপাদন করতে পারে না বা শরীরের কোষ ইনস্যুলিন প্রতিরোধী হয়ে ওঠে এবং এইভাবে এটি গ্লুকোজ শোষণে অক্ষম হয়। যে কোনও ক্ষেত্রেই, রক্তে গ্লুকোজ আর কোথাও না যেতে পারে না; তাই, এটি রক্তেই জমা হতে থাকে, যার ফলে রক্তে গ্লুকোজ উচ্চ-মাত্রার বা উচ্চ-মাত্রার রক্ত-চাপ রোগ হয়।

কিন্তু আপনি কি জানেন যে আপনার সাধারণ, দৈনন্দিন কার্যক্রমগুলি যেমন খুব বেশি ক্যাফিন পান করা এবং মহিলাদের ক্ষেত্রে আপনার মাসিক চলাকালীন দিনগুলি্তে আপনার রক্তের শর্করার মাত্রা প্রায়শঃই বেড়ে যেতে পারে?

হেব্বাল, ব্যাঙ্গালোর, কর্ণাটকে স্থিত কলম্বিয়া এশিয়া হাসপাতালের, পুষ্টিবিদ ও ডায়েটিশিয়ান, মাননীয়া শেরলি গণেশ, কীভাবে এই 8টি দৈনন্দিন কার্যক্রম রক্ত-শর্করার মাত্রা বাড়িয়ে তুলতে পারে তা আমাদের বোঝাতে সাহায্য করবেন।


1. সকালের জল-খাবার প্রায়ই বাদ দেওয়া:

যারা সকালের জল-খাবার খান না বা দুপুর পর্যন্ত প্রায় কিছুই না খেয়ে উপোস করতে থাকেন তাদের সারা দিনই রক্তের শর্করার মাত্রার অস্বাভাবিক হেরফের থাকতে পারে।(1) এক গবেষণা-অধ্যয়নে পরীক্ষা করে দেখা গেছে যেখানে টাইপ 2 ডায়াবেটিসের 22 জন রোগী তাদের সকালের জল-খাবার খাননি, সেই ক্ষেত্রে দেখা গেছে যে তাদের দুপুরের খাবার এবং রাতের খাবার খাওয়ার পরে রক্তের গ্লুকোজের পরিমাণ স্বাভাবিকের চেয়ে অনেকটাই বেশি হেরফের রয়েছে। সকালের জল-খাবার না খেলে শরীর কিছুতেই কার্যকরী গ্লুকোজ উৎপাদন করতে পারে না এবং এর ফলে রক্তের গ্লুকোজকে শক্তিতে রূপান্তর করার ক্ষমতাও একেবারেই কমে যায়। টাইপ 2 ডায়াবেটিসের রোগীদের জন্য, সকালের জল-খাবার না খেলে এর অনুপস্থিতির কারণে HbA1c মাত্রার এক রকম উল্লেখযোগ্য বৃদ্ধিও এর সঙ্গেই এক সূত্রে গাঁথা রয়েছে।

  1. খুব বেশি পরিমাণে সাদা ভাত খাওয়া:

এক গবেষণায় দেখা গেছে যে যারা সপ্তাহে পাঁচ বা তার বেশি বার পরিবেশনে সাদা চালের ভাত খান তাদের টাইপ 2 ডায়াবেটিস হওয়ার ঝুঁকি বেশি থাকে।(2) বিপরীতভাবে, যারা সপ্তাহে পরিবেশনের কমপক্ষে এক তৃতীয়াংশ তাদের সাদা চালের ভাত বাদ দিয়ে বাদামী চালের ভাত খান, তারাই তাদের ডায়াবেটিস হওয়ার ঝুঁকি প্রায় 16 শতাংশ কমিয়ে আনতে পারেন।

সাদা চালের ভাত দ্রুত-কার্যকরী শর্করা সমৃদ্ধ এবং এতে ফাইবারও কম থাকে; এর অর্থ হল খাওয়ার পরেই এটি রক্তে অনেক দ্রুত গতিতে গ্লুকোজ নির্গত করতে থাকে। কিন্তু কোনো রোগীকেই সম্পূর্ণরূপে চালের ভাত খাওয়া বন্ধ করতে হবে না। শুধু মনে রাখবেন যে এক কাপের এক তৃতীয়াংশ পরিমাণ ভাতে প্রায় 15 গ্রাম শর্করা রয়েছে এবং সাধারণভাবে প্রতিবারের আহারে 45-60 গ্রাম শর্করার বেশি যেন কোনও মতেই না থাকে সেটাই সুপারিশ করা হচ্ছে।

  1. ধূমপান:

এর স্বাভাবিক ক্ষতিকারক প্রভাবগুলি ছাড়া, ধূমপান আপনার শরীরকে ইনস্যুলিন প্রতিরোধী করে তোলে। তা্র ওপরে, ডায়াবেটিসে ধূমপান হৃদরোগের সম্ভাবনাও বাড়ায়।

  1. ক্যাফিনযুক্ত কফি বেশি পান করলে:

গবেষণায় দেখা যায় যে কফি, তা হতে পারে ক্যাফিনযুক্ত বা ডিক্যাফিনেটেড পানীয়, আসলেই ডায়াবেটিস হওয়ার ঝুঁকি  8% কমিয়ে দিতে পারে।(3) স্বল্পমেয়াদী অবস্থায়, মাঝারি মাপে পান করলে সেই সময় ক্যাফিন রক্তের শর্করার মাত্রাগুলিকে সাধারণত প্রভাবিত করে না। বেশিরভাগ তরুণ, সুস্থ প্রাপ্ত-বয়স্কদের জন্য প্রতিদিন 400 মিলিগ্রাম পরিমাণ ক্যাফিন পান করা নিরাপদ বলে মনে হয়। তবে, টাইপ 2 ডায়াবেটিস রোগীরা দীর্ঘ সময়ের জন্য ধারাবাহিকভাবে ক্যাফিনযুক্ত কফি ব্যবহার করলে, তাদের খাবারের পরে রক্তের গ্লুকোজের নিয়ন্ত্রণ এবং ইনস্যুলিন সংবেদনশীলতার ক্ষতির দিকে আরো বেশি প্রবণতা দেখা যায়।(4)

  1. মাসিক রক্ত-স্রাব:

মাসিক রক্ত-স্রাব চক্রটি হরমোন এস্ট্রোজেন এবং প্রজেস্টেরন দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়, যেগুলি ইনস্যুলিনের অস্থায়ী প্রতিরোধের কারণ হতে পারে। অতএব, আপনি আপনার এই বিশেষ সময়ের আগে বা চলাকালীন তিন থেকে পাঁচ দিন অবধি রক্তের শর্করার মাত্রা বৃদ্ধি দেখতে পেতে পারেন। এটি প্রতি মাসেই আলাদা হতে পারে এবং সামঞ্জস্যপূর্ণ নাও হতে পারে বা কিছু পরিবর্তিত হতে পারে, কিছু সময়ে এর জন্য অন্যান্য সমস্যাগুলি বেড়েও যেতে পারে।

  1. মানসিক চাপ বা অতিরিক্ত শারীরিক ব্যায়াম জনিত ক্রিয়াকলাপ:

চাপ বা অত্যধিক ব্যায়াম জনিত কার্যকলাপের দরুণ, আমাদের শরীর যথাক্রমে কর্টিসোল এবং অ্যাড্রেনালিন নিঃসরণ শুরু করে, যেগুলি উভয়ই রক্ত-চাপের মাত্রায় অস্বাভাবিক হেরফেরের ঝোঁক দেখায় এবং গ্লুকোজের মাত্রা বাড়ায়।

  1. ঠান্ডা লাগা বা ফ্লু-এর মতো অসুস্থতা:

যে কোনো অসুস্থতা বা ফ্লু-রোগ প্রতিরোধে শরীর কিছু বিশেষ হরমোন উৎপন্ন করে এই হরমোনগুলির উপস্থিতির কারণে অনেক সময়ে খুব ঠান্ডা লাগলে বা ফ্লু-তে অসুস্থ থাকলে রক্ত-চাপের মাত্রায় অস্বাভাবিক হেরফের হয়।

  1. না ঘুমানো:

আপনার শরীর পর্যাপ্ত ঘুমের সময় পাচ্ছে না বা আপনি ঘুম এড়িয়ে চলেছেন এমন অবস্থায় অপর্যাপ্ত ঘুম সরাসরি আপনার রক্তের শর্করার মাত্রাকে প্রভাবিত করতে পারে। আপনি যখন দেরি করে জেগে থাকেন, তখন আপনার শরীর আরও বেশি করে কর্টিসোল হরমোন নিঃসরণ করতে থাকে, আমরা ইতোমধ্যেই জেনেছি যে এই হরমোন রক্তের শর্করার মাত্রাকে প্রভাবিত করে।(5)

আপনার স্বাস্থ্য আপনার হাতেই রয়েছে, তাই আপনার স্বাস্থ্যের ক্ষেত্রে কোনও হটাৎ জটিলতা এড়াতে নিয়মিত আপনার রক্তের শর্করার মাত্রা তদারকি করে স্বাস্থ্যগত যে কোনো অসুবিধা আগে দূর করবেন এটা নিশ্চিত করুন।

তথ্যসূত্র:

  1. Daniela Jakubowicz, Julio Wainstein, Bo Ahren, Zohar Landau, Yosefa Bar-Dayan and Oren Froy. Fasting Until Noon Triggers Increased Postprandial Hyperglycemia and Impaired Insulin Response After Lunch and Dinner in Individuals With Type 2 Diabetes: A Randomized Clinical Trial. Diabetes Care 2015 Jul; dc150761. https://doi.org/10.2337/dc15-0761
  2. Qi Sun, MD, ScD; Donna Spiegelman, ScD; Rob M. van Dam. White Rice, Brown Rice, and Risk of Type 2 Diabetes in US Men and Women. Arch Intern Med. 2010;170(11):961-969. doi:10.1001/archinternmed.2010.109. https://jamanetwork.com/journals/jamainternalmedicine/fullarticle/416025
  3. Huxley R1, Lee CM, Barzi F, Timmermeister L, Czernichow S, Perkovic V, Grobbee DE. Coffee, decaffeinated coffee, and tea consumption in relation to incident type 2 diabetes mellitus: a systematic review with meta-analysis. Arch Intern Med. 2009 Dec 14;169(22):2053-63. doi: 10.1001/archinternmed.2009.439. https://www.ncbi.nlm.nih.gov/pubmed/20008687/
  4. Moisey LL1, Kacker S, Bickerton AC, Robinson LE, Graham TE. Caffeinated coffee consumption impairs blood glucose homeostasis in response to high and low glycemic index meals in healthy men. Am J Clin Nutr. 2008 May;87(5):1254-61. https://www.ncbi.nlm.nih.gov/pubmed/18469247
  5. Kristen L Knutson. Impact of sleep and sleep loss on glucose homeostasis and appetite regulation. Sleep Med Clin. 2007 Jun; 2(2): 187–197. doi: 10.1016/j.jsmc.2007.03.004.  https://www.ncbi.nlm.nih.gov/pmc/articles/PMC2084401/

 

Loved this article? Don't forget to share it!

Disclaimer: The information provided in this article is for patient awareness only. This has been written by qualified experts and scientifically validated by them. Wellthy or it’s partners/subsidiaries shall not be responsible for the content provided by these experts. This article is not a replacement for a doctor’s advice. Please always check with your doctor before trying anything suggested on this article/website.