high cholesterol treatment
Reading Time: 3 minutes

কোলেস্টেরলের উচ্চ-মাত্রা হওয়ার ব্যাপারটা বেশ কয়েকটি জীবনযাপনের পদ্ধতি সম্পর্কিত বিষয়গুলির কারণে সময়ের সাথে বাড়তে থাকে, যেমন অস্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়ার অভ্যাস, ব্যায়াম জনিত শারীরিক ক্রিয়াকলাপের অভাব, ধূমপান এবং স্থূলতা। যেহেতু এই সমস্ত কারণগুলি আমরা আমাদের জীবনযাপনে যা যা পছন্দ করি তার উপর নির্ভরশীল, সেইভাবেই বলা যায় উচ্চ কোলেস্টেরলের মাত্রা সঠিক ও স্বাস্থ্য-সম্মত পছন্দগুলির সাথে নিয়ন্ত্রিত হতে পারে। তবে, অস্বাস্থ্যকর পছন্দগুলি আপনাকে সর্বদা কোলেস্টেরলের মাত্রা বৃদ্ধির ঝুঁকির মুখে রাখে। অতএব, এই ধরনের রোগাবস্থার জন্য তেমন কোনো সম্পূর্ণ প্রতিকার নেই; আপনি শুধুমাত্র কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করতে আপনার জীবনযাপনের পদ্ধতির পরিবর্তন বাস্তবায়ন করতে পারেন।

নতুন দিল্লির অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অব মেডিক্যাল সায়েন্সেস-এর কার্ডিওলজিস্ট ডাঃ নীতিশ নায়েকের মতে, স্বাস্থ্যকর খাদ্য, নিয়মিত শারীরিক ক্রিয়াকলাপ এবং কাম্য ওজনের কারণে কোলেস্টেরলের নিয়ন্ত্রণে কোলেস্টেরল কোণঠাসা হতে পারে। “অনেক রোগীর জন্য ওষুধ সেবনও এক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। যাইহোক, ভুল ধারণা রাখা উচিত নয় যে একবার যাদের কলেস্টেরলের মাত্রা ওষুধের সাহায্যে স্বাভাবিক করা হয়েছে, তার আর জীবনযাপনের পদ্ধতির পরিবর্তন মেনে চলার কোনো ভূমিকা রাখে না। আসলে, স্বাস্থ্যকর জীবনযাপনের পদ্ধতিই হৃদরোগের ঝুঁকি হ্রাস করার সর্বোত্তম উপায়,” তিনি এইটাই বলেছেন।

এই খাদ্যতালিকাগত পরিবর্তনগুলি করুন:

1. ফ্যাটি খাবার খাওয়া কমানো:

প্রক্রিয়াজাত বা সমৃদ্ধ চর্বি এবং ট্রান্স ফ্যাট সমৃদ্ধ খাদ্য-দ্রব্যগুলি LDL (লো ডেনসিটি লাইপোপ্রোটিন) কোলেস্টেরলের মাত্রা বৃদ্ধি করতে পারে যা ধমনীর দেওয়ালে জমা হয়। এটা রক্ত ​​প্রবাহ রুদ্ধ করে, এবং অবশেষে হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়ায়। সুতরাং, আপনার খাদ্য থেকে পিৎজা, বার্গার, নোনতা খাবার, মিষ্টি এবং রেড মিট জাতীয় খাবারগুলি বাদ দিয়ে আপনি আপনার কোলেস্টেরলের মাত্রায় স্বাভাবিক নিয়ন্ত্রণ রাখতে পারেন।

2. উপকারী কোলেস্টেরলের মাত্রা বৃদ্ধি:

উচ্চ-ঘনত্ব যুক্ত লাইপোপ্রোটিন (HDL বা হাই ডেনসিটি লাইপোপ্রোটিন) কোলেস্টেরল সমৃদ্ধ খাবার যা খারাপ কোলেস্টেরল হিসাবে পরিচিত, তার থেকে পরিত্রাণ পেতে সাহায্য করে। সুতরাং, আপনার উপকারী কোলেস্টেরলের উন্নতিতে প্রচুর পরিমাণে জলপাই, চীনাবাদাম এবং এভোকাডোস খাবার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করছেন কিনা তা নিশ্চিত করুন।

3. ফাইবার যুক্ত খাবার খাওয়া:

সবজি, ফল এবং লেবু সমৃদ্ধ একটি খাদ্যতালিকা আপনার শরীরকে প্রয়োজনীয় ভিটামিন এবং খনিজগুলি সরবরাহ করতে পারে যা কোলেস্টেরলের মাত্রা স্বাভাবিক পরিসরে রাখে। ফল অ্যান্টিঅক্সিডেন্টসমূহে সমৃদ্ধ যা উপকারী কোলেস্টেরলের মাত্রার উন্নতি করে। এছাড়া, ফাইবার বা তন্তু যুক্ত খাবার ওজন হ্রাসে সহায়তা করে এবং রক্ত ​​প্রবাহে LDL শোষণ হার কমায়, যা পরোক্ষভাবে আপনার হৃদযন্ত্রকে সুস্থ রাখে।

আপনার শারীরিক সুস্থতা ও সবলতার দখল নিন

আপনার শারীরিক সুস্থতা ও সবলতার দখল নেওয়ার প্রথম পদক্ষেপ হল সব অস্বাস্থ্যকর অভ্যাস ছাড়তেই হবে। সুতরাং, আপনি ধূমপায়ী হলে ধূমপান ছেড়ে দিন; যদি আপনি পান করেন তবে অ্যালকোহল কম পান করুন; এবং যথেষ্ট ঘুম যাতে হয় সেই চেষ্টা করুন। ওজন কমানো এবং ব্যায়াম শুরু করে দেওয়ার উপর বেশি করে মনোযোগ দিন। এটি আপনাকে যে শুধুই সুস্থ ও সবল রাখবে তাই-ই নয় বরং আপনার কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতেও সহায়তা করবে। বেশ কিছু গবেষণায় দেখা গেছে যে ব্যায়াম হৃদরোগের উন্নতিতে সহায়তা করে। প্রায় 45-60 মিনিটের মাঝারি তীব্রতার ব্যায়াম সঠিক খাদ্যতালিকাগুলির সাথে মিলিত হলে LDL ক্রমেই কমতে পারে।

আপনার মানসিক-চাপের মাত্রা কমান

দীর্ঘস্থায়ী মানসিক-চাপ হোমোসিসস্টাইনের মাত্রা বাড়ায়, এটি হল একটি অ্যামিনো অ্যাসিড যা বাড়তি কোলেস্টেরল বৃদ্ধি এবং হৃদরোগের ঝুঁকি সম্পর্কিত। সুতরাং, মাঝে মাঝে মানসিক-চাপমুক্তি জনিত কার্যকলাপ করুন এবং যখন আপনি মনে করেন এটি সর্বাধিক প্রয়োজন তখন সব কাজ থেকে বিরতি নিন। যোগাভ্যাস এবং ধ্যান, এবং নৃত্য এবং সাঁতারের মতো ক্রিয়াকলাপগুলি কেবল শরীর শিথিল করে তাই নয় বরং ব্যায়ামের একটি উপযোগী রূপ যা আপনি আপনার দৈনন্দিন রুটিনে রাখতে পারেন।

চিকিৎসা পদ্ধতি

ওষুধ সেবন উচ্চ কোলেস্টেরল একেবারে সারিয়ে তোলে না, তবে এটি আপনার কোলেস্টেরলের মাত্রাকে স্বাভাবিক পরিসরে ফিরিয়ে আনতে কার্যকর হয়। সুতরাং, যদি আপনার উচ্চ-মাত্রার কোলেস্টেরল আছে তা নির্ণয় হয়ে থাকে, আপনার ডাক্তার প্রথমে স্ট্যাটিন এবং ফাইব্রেটস-এর মতো ওষুধগুলি আপনাকে সেবনের জন্য দেবেন। যাইহোক, একবার আপনি ওষুধ সেবন বন্ধ করলে, আপনার কোলেস্টেরলের মাত্রা আবার উল্টোদিকে খুব বেশি বা কম হতে পারে। এছাড়া, ওষুধ জনিত কিছু পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়াও থাকতে পারে। উচ্চ কোলেস্টেরলের সঠিক চিকিৎসা পরিকল্পনা, অতএব, ডাক্তারের পরামর্শ অনুসারে ঠিক তখনই নিয়ন্ত্রণের জন্য ওষুধ সেবন করতে দেওয়া হবে, তারপরে একটি সুস্থ ও স্বাস্থ্যকর খাদ্য পরিকল্পনা এবং উপযুক্ত ব্যায়াম পদ্ধতি অনুসরণ করা হবে।

Loved this article? Don't forget to share it!

Disclaimer: The information provided in this article is for patient awareness only. This has been written by qualified experts and scientifically validated by them. Wellthy or it’s partners/subsidiaries shall not be responsible for the content provided by these experts. This article is not a replacement for a doctor’s advice. Please always check with your doctor before trying anything suggested on this article/website.