Reading Time: 3 minutes

উচ্চ রক্তচাপ হল দৈনন্দিন জীবনধারা জনিত বিভিন্ন রোগগুলির মধ্যে একটি যা সঠিক ডায়েটের দ্বারা সংবরণ করা যায়। অনিয়মিত খাবার অভ্যাস এবং অস্বাস্থ্যকর খাবার আপনার রক্ত চাপের মাত্রাকে ভীষণভাবে প্রভাবিত করতে পারে। এছাড়া এটি আপনার দৃষ্টিশক্তিকে প্রভাবিত করতে পারে অথবা কিডনি অকেজো হয়ে যাওয়া, স্ট্রোক অথবা হৃদপিণ্ডের অকেজো হয়ে যাওয়ার দিকে নিয়ে যেতে পারে। আরো তামাক এবং মদের অপব্যবহার, অধিক সোডিয়াম গ্রহণ, শারীরিক কর্মতৎপরতার অভাব, স্ট্রেস এবং ডায়াবেটিস বা কোলেস্টেরলের মত দীর্ঘস্থায়ী অবস্থাগুলি ঝুঁকি বাড়ায়। তাই অবস্থাটি সংবরণ করা আবশ্যক বা আদর্শভাবে, রোগ প্রতিরোধ করতে সঠিক পদক্ষেপ নিন।

নিধি ধাওয়ান, এইচওডিডায়েটিটিক্স, সারোজ সুপার স্পেসালিটি হসপিটাল, নতুন দিল্লীপরামর্শ দেন যে উচ্চ রক্ত চাপ নিয়ন্ত্রণ করতে কিছু নির্দিষ্ট খাবার আপনার ডায়েটে যোগ করা যেতে পারে। এগুলো বিস্তারিতভাবে দেখা যাক।

অনেক স্বাস্থ্যকর খাবার আছে যা তৈরি করতে অল্প সময় বা সময়ই লাগে না এবং সহজেই আপনার দৈনন্দিন ভোজন বা খাবারের অংশ হয়ে উঠতে পারে। একটি স্বাস্থ্যকর ডায়েট সবজি, ফল এবং কম চর্বিযুক্ত দুগ্ধজাত খাবার সাথে সঠিক পরিমাণে শস্য দানাযুক্ত খাবার, মাছ, পোলট্রি এবং বাদাম গ্রহণের উপর জোর দেয়। এগুলো আরো দেখা যাক।

শস্য দানাযুক্ত খাবারঃ

প্রতিদিন তিন বার শস্য দানাযুক্ত খাবার খেলে রক্ত চাপ কমাতে সাহায্য করে। শস্য দানাযুক্ত খাবারে থাকা পুষ্টিকর গুণগুলি এইসব সুবিধা দেয়, যা শস্য দানাছাড়া খাবার দিতে পারেনা। শস্য দানাযুক্ত খাবারে থাকা পটাশিয়াম এবং ম্যাগনেসিয়াম আপনার রক্ত চাপ কমাতে সাহায্য করে। শস্য দানাযুক্ত গম, ভাঙা গম, বার্লি এবং শস্য দানাযুক্ত পাউরুটি সাথে ভাত এবং ওটস কম চর্বিযুক্ত। উপরন্তু, এই খাবারগুলো ফাইবারে ভরা এবং কোলেস্টেরলের উপর উপকারী প্রভাব ফেলে।

সবজিঃ

কম চর্বিযুক্ত ডায়েটের অংশ অনুযায়ী প্রতিদিন পাঁচবার ফল এবং সবজি গ্রহণ করলে রক্ত চাপ কমায়। স্কোয়াশ বা কুমড়ো, মিষ্টি আলু এবং বীট ভাল পুষ্টিগত গুণ যোগ করে। পালংশাক, পাতা কপি এবং ওলকপির মত শাকসবজি পটাশিয়ামে ভরা এবং আপনার কিডনিকে অধিক সোডিয়াম বার করতে সাহায্য করে। টমেটো, গাজর এবং ব্রকোলির মত সবজিগুল ফাইবার, ভিটামিন এবং ম্যাগনেসিয়ামে ভরা। আপনার স্যালাডে একটু অলিভ তেল বা বালসামিক ভিনিগার ছড়িয়ে দিলে না শুধু দেখতে ভাল লাগে বরং খেতেও ভাল লাগে এবং আপনার কোলেস্টেরল লেভেলের জন্যেও উপকারী।

 ফলঃ

ফলের মধ্যে ফাইবার, পটাশিয়াম এবং ম্যাগনেসিয়াম থাকে এবং সাধারণত কম চর্বি যুক্ত। দানাযুক্ত খোসা ছাড়ান আপেল, নাশপাতি এবং বেশিরভাগ ফল না শুধু আপনার খাবারকে দেখতে সুন্দর করে তারা অনেক পুষ্টি এবং ফাইবারও রাখে। এমনকি যদি ফল স্বল্পমাত্রায় বা সরবত করে খাওয়া যায় তাহলেও সময়ের সাথে সাথে ডায়াস্টোলিক এবং সিস্টোলিক রক্ত চাপ কমায়। বেদানার বীজ, কিশমিশ, খুবানি এবং বেরিও অনেক পুষ্টি রাখে এবং হৃদপিণ্ডের জন্য উপকারী খাবার। মাথায় রাখতে হবে টক যাতিয় ফল এবং সরবত যেমন আঙুর কিছু ওষুধের সাথে ক্রিয়া করতে পারে, তাই তাদের আপনার ডায়েটে যোগ করার আগে ডাক্তারের পরামর্ষ নেবেন। যদি আপনি ক্যানে করা ফল বা সরবত কেনেন তাহলে দেখে নেবেন চিনি মেশানো আছে কিনা।

 দুগ্ধজাত দ্রব্যঃ

কম এবং চর্বি বিহিন দুগ্ধজাত দ্রব্য বেছে নিন। আপনার দুগ্ধজাত দ্রব্য বেছে নেওয়ার সবচেয়ে ভাল উপায় হল লেবেল দেখে নেওয়া। স্কিমড দুধ হল ক্যালসিয়ামের খুব ভাল উৎস এবং কম চর্বিযুক্ত, যে দুটোই রক্ত চাপ কমানোর ডায়েটের গুরুত্বপূর্ণ অংশ। যদি আপনি দুধ খেতে না ভালবাসেন তাহলে আপনি দইও খেতে পারেন। যদি আপনার দুগ্ধজাত দ্রব্য হজমে অসুবিধা হয় তাহলে ল্যাকটোজ ছাড়া দ্রব্য বেছে নিন বা ল্যাকটেজ এনজাইমযুক্ত কোন দ্রব্য নিন যা ল্যাকটোজ অসহিষ্ণুতা কমাবে বা আটকাবে।

মাংশঃ  

মাংশ প্রোটিন, ভিটামিন বি, আয়রন এবং জিংকের ভাল উৎস। চর্বিযুক্ত মাছ হৃদয়ের জন্য ভাল ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিডে ভরা, যা রক্ত চাপকে সাস্থকর মাত্রায় নিয়ে যেতে পারে।  কিন্তু বেশি পশুর উৎসের প্রোটিনের ডায়েটের সমস্যা এই যে তারা স্যাচুরেটেড চর্বিতে ভর্তি এবং সেটা আপনার হৃদয়ের জন্য ক্ষতিকারক। কম চর্বিযুক্ত মাংস বেছেনিন এবং খেয়াল রাখুন যেন একদিনে ৬ আউন্সের বেশি না খেতে। মাংসের চেয়ে মাছ বেছে নিন যা কম চর্বিযুক্ত এবং ভিটামিন, মিনারেল এবং ওমেগা-৩ চর্বিতে ভরা, যা রক্ত চাপ কমাতে এবং রক্ত জমার থেকে আটকায়।    

বীজ এবং বাদাম যাতিয় দ্রব্যঃ

অ্যালমণ্ড, কাজু বাদাম, কুমড়োর বীজ এবং সূর্যমুখীর বীজের মত  ম্যাগনেসিয়ামে ভরা খাব্র উচ্চ রক্ত চাপ কমাতে সাহায্য করে। ফ্লাক্স বীজ যা ফাইবারের সাথে সাথে ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিডের খুব ভাল উৎস, শরীরে জ্বালা কমাতে সাহায্য করে এবং আপনার সংবহনতন্ত্রের সাস্থ ভাল রাখে। আরো সাস্থকর গুণ যোগ করার জন্য আপনার পছন্দের স্মুদি বা সকালের ওটমিলের মধ্যে তাদের মেশান।    

ডার্ক চকোলেটঃ

আপনার নিজেকে মিষ্টি খাওয়ার থেকে বিরত রাখতে হবে না আপনার রক্ত চাপ কমাতে। একটু ডার্ক চকোলেট ঐ নম্বরগুল কমানোর ব্যাপারে অনেক দূর এগিয়ে, ওটার মধ্যেকার ফ্ল্যাভোনয়েডের জন্য। শুধু নিশ্চিত হয়ে নেবেন যে আপনি সত্যিকারের ডার্ক চকোলেট বেছে নিচ্ছেন সবচেয়ে ভাল উপকারীতার জন্য। যে খাবারগুলয় চিনি বেশি, যেমন বেশীরভাগ দুধের চকোলেট, রক্ত চাপ বারায়।

Loved this article? Don't forget to share it!

Disclaimer: The information provided in this article is for patient awareness only. This has been written by qualified experts and scientifically validated by them. Wellthy or it’s partners/subsidiaries shall not be responsible for the content provided by these experts. This article is not a replacement for a doctor’s advice. Please always check with your doctor before trying anything suggested on this article/website.