Reading Time: 3 minutes

রমজান এগিয়ে আসছে এবং সারা বিশ্বের মুসলমানরা এক মাসের জন্য প্রতিদিন ভোর থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত রোজা রাখার প্রস্তুতি নিচ্ছেন। এই সময়ে, তাদের স্বাভাবিক নিয়নন্ত্রিত খাদ্যাভাসের রুটিনগুলি কেবলমাত্র একবার সূর্যোদয়ের (সেহেরীর) আগে এবং পরবর্তীতে সূর্যাস্তের পরে (ইফতারের) দিনে দু’বার খাদ্য গ্রহণে প্রতিস্থাপিত হয় জীবনযাত্রায় এ জাতীয় পরিবর্তন রক্তে শর্করার মাত্রায় ওঠানামার ঝুঁকি বাড়িয়ে তোলে, হাইপারগ্লাইসেমিয়া সৃষ্টি করে। আপনার যদি ডায়াবেটিস থাকে এবং আপনি রমজান মাসে রোজা রাখার প্রস্তুতি নিচ্ছেন তবে আপনার কয়েকটি জিনিস জানা উচিত

হাইপারগ্লাইসেমিয়া কী?

এটি রক্তে উচ্চ শর্করার মাত্রার প্রযুক্তিগত শব্দ। যখন রক্তের শর্করার মাত্রা 125 মিলিগ্রাম/ডিএল-এর চেয়ে বেশি এবং রোজার সময় খাওয়ার 2 ঘন্টা পরে 180 মিলিগ্রাম/ডিএল-এর বেশি হয়, তখন অবস্থাটি হাইপারগ্লাইসেমিয়া হিসাবে পরিচিত।(1)  হাইপারগ্লাইসেমিয়ার লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে রক্তে উচ্চ মাত্রায় শর্করা, প্রস্রাবে উচ্চ পরিমাণে শর্করা, ঘন ঘন প্রস্রাব হওয়া এবং তৃষ্ণা বেড়ে যাওয়া। রোজার সময় গুরুতর হাইপারগ্লাইসেমিয়া টাইপ 1 ডায়াবেটিস রোগীদের মধ্যে 3.2 গুণ ও টাইপ 2 ডায়াবেটিস রোগীদের মধ্যে 5 গুণ ঝুঁকি বৃদ্ধির সম্ভাবনা বেশি।(2)

ডায়াবেটিস রোগী হিসাবে, আপনি প্রতিদিন রক্তে শর্করার পরিবর্তনের প্রবণ হন। একটি সঠিক নিয়ন্ত্রিত খাদ্যাভাস এবং ওষুধের রুটিনের সাথে এই অবস্থার পরিচালনা করা মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখতে সহায়তা করে। তবে, রমজানের সময় রোজা এ জাতীয় ঘটনাগুলির সংঘটন এবং হারকে প্রভাবিত করতে পারে। শরীর থেকে জল হ্রাসের ফলে গ্রীষ্মের সময়কার রোজাতে আরও একটি কঠিন পরিস্থিতি হতে পারে, যা শরীরের জলশূন্যতা নামে পরিচিত।

ঝুঁকি কেন?

নিয়ন্ত্রিত খাদ্যাভাসের রুটিন

আপনি কখন এবং কী খান তা আপনার রক্তে শর্করার মাত্রাকে প্রভাবিত করে। রমজানে খাবারের পরিমাণ, গুণমান এবং সময় পরিবর্তনে রক্তে শর্করার মাত্রায় হস্তক্ষেপ করে 18-20 ঘন্টার ব্যবধানের পরে দিনে মাত্র দু’বার খাওয়া আপনার ডায়াবেটিস এর পক্ষে ক্ষতিকারক হয়ে ওঠে

এছাড়াও, মুখে জল আনা ইফতারের খাবারগুলিতে বেশিরভাগ সময় চিনি এবং শর্করা প্রচুর পরিমাণে থাকে যা তাৎক্ষণিক শক্তি হিসাবে কাজ করে। তবে, এই সময়ে নিয়ন্ত্রিত খাদ্যাভাসের অভাবে হাইপারগ্লাইসেমিয়ার মতো জটিলতা দেখা দিতে পারে এবং আপনার অবস্থা আরও খারাপ হতে পারে। কয়েক ঘন্টা রোজার পরে হঠাৎ ক্যালোরিযুক্ত খাবার গ্রহণের ফলে রক্তে শর্করার মাত্রা বেড়ে যায়।(3)

ঔষধের রুটিন

ডায়াবেটিসে আক্রান্ত বেশিরভাগ লোক রোজার প্রয়োজন অনুসারে তাদের ওষুধের পদ্ধতি পরিবর্তন করে। তারা রোজার সময় হাইপোগ্লাইসেমিয়ার ভয়ের কারণে তাদের ডায়াবেটিসের ওষুধগুলিকে অত্যধিকভাবে কমাতে থাকে।(4) এই পরিবর্তনগুলি যখন চিকিৎসকের নির্দেশিকা ব্যতীত করা হয় তখন তা রক্তে শর্করার মাত্রায় ওঠানামার দিকে পরিচালিত করে।

কি করবেন?

আপনি যখন রোজার সাথে যুক্ত ঝুঁকিগুলি সম্পর্কে সচেতন হন, তখন জটিলতাগুলি কমাতে আপনি আরও ভাল অবস্থায় থাকেন। রোজা রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে আপনার কয়েকটি বিষয় বিবেচনা করা উচিত।

ডাক্তারের সাথে কথা বলুনঃ রোজা পালনের সাথে জড়িত ঝুঁকিগুলি নিয়ে আপনার ডাক্তারের সাথে আলোচনা করুন। সবচেয়ে ভাল হয়, যদি ডাক্তার আপনাকে প্রাক-ঝুঁকি মূল্যায়ন পরীক্ষার করার সুপারিশ করেন এবং সেই অনুযায়ী পরামর্শ দেন

তথ্য সংগ্রহ করুন: আপনার ডাক্তারের সাথে আলোচনার পর, যদি আপনি রোজা রাখতে চান তবে নিম্নলিখিত বিষয়গুলি মাথায় রাখুন।(5)

  1. আপনার অবস্থা নিয়ন্ত্রণ করার উপায় সম্পর্কে সম্পূর্ণ অবহিত হন।           
  2. আপনার রোজার মাসে প্রয়োজনীয় দৈনিক কাজ, নিয়ন্ত্রিত খাদ্যাভাস, শর্করা পর্যবেক্ষণ এবং ঔষধের সাথে সামঞ্জস্য সম্পর্কিত তথ্য সংগ্রহ করুন।           
  3. হাইপারগ্লাইসেমিয়ার চিহ্ন ও লক্ষণগুলি সম্পর্কে সচেতন থাকুন।           
  4. রোজা রাখার সময় আপনার রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়মিতভাবে পর্যবেক্ষণ করুন, দিনে 2-3 বার পরামর্শ দেওয়া হয়।           
  5. যদি মাত্রাতে অনিয়ম লক্ষ্য করা যায় তবে অবিলম্বে ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন বা সম্ভব হলে রোজা ভেঙ্গে ফেলুন পরবর্তীতে আপনার শরীর আরও ভাল থাকলে আপনি আবার রোজা রাখতে পারবেন।

এখন আপনি জানেন কেন এবং কীভাবে রোজাতে ডায়াবেটিসে আক্রান্ত ব্যক্তিদের হাইপারগ্লাইসেমিয়া বাড়ে। আপনি রোজা রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে এবং পরে সব কিছু বিবেচনা করুন। আপনার ডাক্তারের সাথে সর্বদা যোগাযোগ রাখুন। শুভ রমজান!  

 সূত্র:

  1.   Mouri MI. Hyperglycemia [Internet]. StatPearls [Internet]. U.S. National Library of Medicine; 2020 [cited 2020Mar9]. Available from: https://www.ncbi.nlm.nih.gov/books/NBK430900/
  2. Hyperglycemia (High Blood Glucose) [Internet]. Hyperglycemia (High Blood Glucose) | ADA. [cited 2020Mar5]. Available from: https://www.diabetes.org/diabetes/medication-management/blood-glucose-testing-and-control/hyperglycemia
  3. Raveendran AV, Zargar AH. Diabetes control during Ramadan fasting. Cleveland Clinic Journal of Medicine. 2017Jan;84(5):352–6.
  4.   Almalki MH, Alshahrani F. Options for Controlling Type 2 Diabetes during Ramadan. Frontiers in Endocrinology. 2016;7.
  5. Beshyah S. IDF-DAR practical guidelines for management of diabetes during ramadan. Ibnosina Journal of Medicine and Biomedical Sciences. 2016;8(3):58.

Loved this article? Don't forget to share it!

Disclaimer: The information provided in this article is for patient awareness only. This has been written by qualified experts and scientifically validated by them. Wellthy or it’s partners/subsidiaries shall not be responsible for the content provided by these experts. This article is not a replacement for a doctor’s advice. Please always check with your doctor before trying anything suggested on this article/website.