Reading Time: 3 minutes


আমাদের শরীর যখন প্রয়োজনীয় সবকটি নিউট্রিয়েন্টস পায় শুধু তখনই শরীরের যেরকম কাজ করার কথা সেরকম কাজ করে। তাও আবার যখন সেগুলি সবকটি সুষমভাবে থাকে, এবং নিউট্রিয়েন্টসগুলির সেই ভারসাম্যের অনুপাতও খুব সূক্ষ্ম। একটু এদিক থেকে ওদিক হলেই, স্বাস্থ্যের সমস্যা হতে পারে এবং হবে।

মিনারেল উপাদান পটাশিয়ামের কথাই ধরুন। এটি কমে গেলে রক্তচাপ বেড়ে যায়, ক্যালশিয়ামের পরিমাণ কমে যায় এবং কিডনিতে পাথর পর্যন্ত হতে পারে1। এগুলির সবকটিই হার্টের স্বাস্থ্যের পক্ষেও ক্ষতিকর। অপরপক্ষে,  হার্ট বিকল হয়ে যাওয়া 10 জনের মধ্যে 4 জনই হাইপারক্যালিমিয়া2 নামক একটি রোগে ভোগেন, যার অর্থ হল ‘বেশি পটাশিয়াম!’

পটাশিয়াম এমন সব রাসায়নিকের মধ্যে অন্যতম, যা আপনার হার্টের কাজ চালু রাখে; এটি আপনার শরীরে জলের ভারসাম্য বজায় রাখার পক্ষেও গুরুত্বপূর্ণ। অত্যধিক পটাশিয়াম আবার আপনার শরীরের কার্যকলাপ বিঘ্নিত করতে পারে এবং আপনার কিডনির কার্যকলাপ ও পেশিকে প্রভাবিত করে আপনাকে দুর্বল করে দেয়।3

এইরকম জটিল রোগ দেখা দেওয়ার কারণ কী?

হার্ট এবং কিডনির মধ্যে একটি বেশ গূঢ় সম্পর্ক রয়েছে। কিডনি মূত্রের মাধ্যমে শরীরের অতিরিক্ত জল ও লবণ বের করে কমিয়ে দেয় এবং শরীরে ইলেকট্রোলাইটের ভারসাম্য বজায় রাখে। হার্ট যে রক্ত পাম্প করে তাতে কতটা পরিমাণ জল রয়েছে তার দ্বারা হার্টের কার্যকলাপ প্রভাবিত হয়। হার্টকে যত বেশি তরল পাম্প করতে হয়, হার্টের উপর চাপও তত বেশি পড়ে। বিকল হয়ে যাওয়া হার্ট সুস্থ করতে, চিকিৎসকরা ‘ওয়াটার পিলের’ প্রস্তাব দেন। এই বড়িগুলি মূত্রের মাধ্যমে শরীর থেকে রেচন হওয়া জলের পরিমাণ বাড়ায়, তবে এটি রক্তে পটাশিয়ামের পরিমাণ অতিরিক্ত করে তুলতে পারে। পটাশিয়াম বেড়ে গেলে তা যথেচ্ছভাবে হার্টকে ক্ষতিগ্রস্ত করে এবং অনিয়মিত হৃদস্পন্দন, প্যারালিসিস, বমিভাব এবং পেশীর ক্লান্তির মত সমস্যা সৃষ্টি করে।2,3

বেশিরভাগ ফল ও শাকসব্জীতেই স্বাস্থ্যকর পরিমাণে পটাশিয়াম থাকে। আপনার শরীরে পটাশিয়ামের সঠিক ভারসাম্য আনার জন্য যে যে ফলগুলি খাওয়া সঠিক হবে এখানে তার একটি তালিকা দেওয়া হল!

এখানে সেইসব ফলের একটি তালিকা দেওয়া হল যা আপনি আপনার ডায়েটে রাখতে পারেন:

  1. তরমুজ: এক কাপ তরমুজ আপনার সন্ধ্যেবেলার হালকা খাবারে সতেজতার ছোঁয়া আনতে পারে
  2. আনারস: সুস্বাদু, হালকা টক এই ফলটি গোটা অবস্থায় বা রস বানিয়ে উপভোগ করতে পারেন
  3. পেঁপে:মিষ্টি পেঁপে কেটে স্যালাড বা অ্যাপেটাইজার হিসেবে খাওয়ার চেয়ে ভালো আর কীই বা হতে পারে
  4. নাশপাতি: 1টি ছোট নাশপাতি আপনার পেটও ভরায় আবার এতে থাকা নিউট্রিয়েন্টের সঠিক পরিমাণ আপনার হার্ট ও কিডনিও সুস্থ রাখে
  5. বেরি:স্ট্রবেরি এবং চেরি মাঝ-দুপুরে আপনার হালকা খাবারের সঙ্গী হতে পারে
  6. আপেল:দিনে একটি করে আপেল খান, ডাক্তার দেখানোর দরকার পড়বে না
  7. আঙ্গুর:একথোকা আঙ্গুর আপনার আদর্শ ডেজার্ট হতে পারে! আঙ্গুরে কম পরিমাণে পটাশিয়াম রয়েছে এবং আপনার কিডনির সমস্যা ধরা পড়লেও আপনি নিশ্চিন্তে এটি খেতে পারেন।
  8. প্লাম:1টি ছোট প্লামের গুণাগুণের সাথে অন্য কোনও ফলের জুড়ি মেলা ভার

মনে রাখবেন, মেপে খাওয়াই কিন্তু মূল চাবিকাঠি! পটাশিয়ামের স্তর বজায় রাখার জন্য এই ফলগুলির যে কোনওটি ½ কাপ খান, যদি না অন্য কিছু নির্দিষ্ট করে দেওয়া হয়ে থাকে। এমনকি আপনি আপনার ডায়েটে বৈচিত্র্য আনতে চাইলেও, তা সীমিত পরিমাণে করুন। এই ফলগুলির যে কোনওটিই অত্যধিক পরিমাণে খেলে, তা কিন্তু আপনার পটাশিয়াম স্তর মাত্রাছাড়া বাড়িয়ে তুলতে পারে, বিশেষ করে আপনি যদি ইতিমধ্যেই বেশি পটাশিয়ামে ভোগেন।

আপনার যে ফলগুলি এড়িয়ে চলা উচিত:

1.কলা
2.অ্যাপ্রিকট, আলুবোখরা, ডুমুর এবং কিসমিসের মত শুকনো ফল
3.অ্যাভোক্যাডো
4.আম

খাবারে লবণের প্রতিস্থাপক কোনও পদার্থ রয়েছে কিনা দেখেও আপনি পটাশিয়ামের স্তর নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন। লবণের প্রতিস্থাপকগুলি আসল রেডি-টু-ইট খাবারে প্রিজার্ভেটিভ হিসেবে থাকে। এগুলি কিন্তু আপনার পটাশিয়ামের স্তর বাড়াতে পারে। কাজেই খাবারের প্যাকেটে নিউট্রিয়েন্ট সংক্রান্ত তথ্যগুলির লেবেল দেখার অভ্যাস করাই ভালো। রান্না করা পালংশাক, আলু এবং টম্যাটো পটাশিয়ামের দারুণ উৎস; পারলে সেগুলিও এড়িয়ে চলার চেষ্টা করুন। যদি আপনি নির্দিষ্ট কিছু ফল ও শাকসব্জী খেতে ভালোবাসেন যেগুলি পটাশিয়ামের পরিমাণ বেশি থাকে, তাহলে পটাশিয়ামের স্তর কম করার সবথেকে সহজ উপায় হল সেগুলিকে কেটে, খোসা ছাড়িয়ে জলে ভিজিয়ে রাখা, যাতে পটাশিয়াম বেরিয়ে যায়।
5

“বৈচিত্র্যই জীবনের মূল আস্বাদ!” আপনি সবথেকে প্রাকৃতিক উপায়ে পটাশিয়ামের স্তর সুস্থভাবে বজায় রাখার জন্য বিভিন্ন রকম ফল মিলিয়ে মিশিয়ে খেতে থাকুন, আর চিকিৎসকদেরকে ওষুধের সঠিক ভারসাম্য বাতলাতে দিন।

তথ্যসূত্র:

  1. Office of Dietary Supplements – Potassium [Internet]. Nih.gov. 2016 [cited 2020 Apr 28]. Available from: https://ods.od.nih.gov/factsheets/Potassium-Consumer/
  2. Thomsen RW, Nicolaisen SK, Hasvold P, Garcia‐Sanchez R, Pedersen L, Adelborg K, Egfjord M, Egstrup K, Sørensen HT. Elevated potassium levels in patients with congestive heart failure: Occurrence, risk factors, and clinical outcomes. J Am Heart Assoc. 2018 May 22;7(11):pii:e008912. doi:10.1161/JAHA.118.008912.
  3. Mayo Clinic Staff. High potassium (hyperkalemia) [Internet]. 2018 Jan 11 [cited 2019 Jul 20]. Available from: https://www.mayoclinic.org/symptoms/hyperkalemia/basics/when-to-see-doctor/sym-20050776.
  4. Potassium and your CKD diet [Internet]. 2019 [cited 2019 Jul 20]. Available from: https://www.kidney.org/atoz/content/potassium.
  5. Heart failure diet: Potassium [Internet]. [updated 2019 May 01; cited 2019 Jul 20]. Available from: https://my.clevelandclinic.org/health/articles/17073-heart-failure-diet-potassium.

 

Loved this article? Don't forget to share it!

Disclaimer: The information provided in this article is for patient awareness only. This has been written by qualified experts and scientifically validated by them. Wellthy or it’s partners/subsidiaries shall not be responsible for the content provided by these experts. This article is not a replacement for a doctor’s advice. Please always check with your doctor before trying anything suggested on this article/website.